image
image
image
image
image
image
image
image
image
image
image
শিক্ষার্থীদের জন্য অনলাইনে শারীরিক শিক্ষা

গেমিং প্ল্যাটফর্ম

শারীরিক শিক্ষা বিভাগ, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর।

image
image
image

শারীরিক শিক্ষা বিভাগ

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একজন ক্রীড়াবিদ, ক্রীড়াপ্রেমী এবং সর্বোপরি একজন ক্রীড়া সংগঠক ছিলেন। বঙ্গবন্ধু গোপালগঞ্জ মিশন স্কুলের ফুটবল টিমের অধিনায়ক ছিলেন। চল্লিশের দশকে বঙ্গবন্ধু ঢাকা ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের হয়ে নিয়মিত ফুটবল খেলেছেন। শুধু ফুটবল নয়, ভলিবল, বাস্কেটবল এবং হকিতেও ছিল বঙ্গবন্ধুর সমান পারদর্শিতা। ক্রীড়াপ্রেমী বঙ্গবন্ধু যুদ্ধবিধ্বস্ত সদ্য স্বাধীন দেশে ক্রীড়াকে জাগ্রত করার জন্য ১৯৭২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ‘জাতীয় ক্রীড়া নিয়ন্ত্রণ সংস্থা’ গঠন করেন। আর্থিক সংকটের মধ্যেও ক্রীড়া অবকাঠামো উন্নয়ন এবং দেশের শীর্ষ ও গুরুত্বপূর্ণ ক্রীড়া ফেডারেশন গঠনে অবদান রাখেন।

এছাড়াও ১৯৭২ সালে গঠন করেন ‘বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল ও মাদ্রাসা ক্রীড়া সমিতি’। এই নামকরণ করেন স্বয়ং বঙ্গবন্ধু। ১৯৫৩ সাল থেকে ১৯৬১ সাল পর্যন্ত Inter School Sports Association of East Pakistan নামক সংস্থা কর্তৃক স্কুল ও মাদ্রাসা ক্রীড়া পরিচালিত হতো। ১৯৬২ সালে এ নাম পরিবর্তিত হয়ে ‘জাতীয় স্কুল ক্রীড়া সমিতি’ গঠিত হয়। স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু কর্তৃক পরিবর্তিত নাম ‘বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল ও মাদ্রাসা ক্রীড়া সমিতি’ নামে সারা বাংলাদেশে মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে ক্রীড়া কার্যক্রম চলতে থাকে যা এখন পর্যন্ত চলমান। বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া এই প্রতিষ্ঠানটি ২০২২ সালে ৫০ তম শীতকালীন ক্রীড়া আয়োজনের মাধ্যমে ক্রীড়া সমিতির সুবর্ণজয়ন্তীও পালন করতে যাচ্ছে।।

বর্তমানে এই সমিতি ‘বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা ক্রীড়া সমিতি’ নামে আরও বিস্তৃত পরিসরে কাজ করছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের শারীরিক শিক্ষা বিভাগ এই সমিতির কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সমিতির সভাপতি হচ্ছেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের ‘মহাপরিচালক’ এবং সম্পাদক হচ্ছেন একজন ‘উপপরিচালক’ পদমর্যাদার কর্মকর্তা। মহামান্য রাষ্ট্রপতি হচ্ছেন সমিতির প্রধান পৃষ্ঠপোষক। মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী এবং শিক্ষা সচিব মহোদয় সমিতির পৃষ্ঠপোষক। শিক্ষার একদম তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত এই সমিতির কার্যক্রম বিস্তৃত এবং তৃণমূল পর্যায়ের শিক্ষা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দও সমিতির সাথে যুক্ত আছেন।

বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা ক্রীড়া সমিতি প্রতিবছর প্রতিষ্ঠান পর্যায় থেকে থানা/উপজেলা পর্যায়, জেলা পর্যায়, ৯টি উপ অঞ্চল পর্যায় এবং ৪টি ক্রীড়া অঞ্চল পর্যায়ে ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকে। সর্বশেষ চারটি ক্রীড়া অঞ্চল নিয়ে হয় চুড়ান্ত জাতীয় প্রতিযোগিতা। শীতকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা এবং গ্রীষ্মকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা নামে দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে বৎসরে দুইবার এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। দেশব্যাপী শিক্ষার্থীদের মধ্যে খেলাধুলায় আগ্রহী করে তোলার লক্ষ্যে প্রতিবছর জাতীয় আসরের ভেন্যু পরিবর্তন করা হয় এবং কোনো একটি শিক্ষা বোর্ড শারীরিক শিক্ষা বিভাগের সহায়তায় জাতীয় চুড়ান্ত এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকে। এছাড়াও শারীরিক শিক্ষা, ক্রীড়া শিক্ষা, ক্রীড়া শিক্ষক প্রশিক্ষণ প্রভৃতি বিষয়ে শারীরিক শিক্ষা বিভাগ কাজ করে যাচ্ছে।

Md. Akhteruzzaman Bhuiyan
B.C.S. (Education)
01675102390

image image

ভিডিও

image

খেলাধুলা

খেলাধুলা বা খেলাধূলা হলো এমন একধরনের কাজ যা বিনোদনের জন্য অথবা কখনো কখনো জ্ঞান অর্জনের সরঞ্জাম হিসাবে গণ্য করা হয় । এটা বিনোদনের একটি স্বতন্ত্র মাধ্যম যা শুধু আনন্দ উপভোগের জন্য অথবা পুরস্কার জন্য করা হয়। খেলাধুলা সাধারণত কাজের চেয়ে কিছুটা ভিন্ন ।

সমস্ত খেলা দেখুন
image

দাবা একটি জনপ্রিয় খেলা যা বোর্ড বা ফলকের উপর খেলা হয়। দাবা খেলার সর্বপ্রথম সূচনা হয় ভারতবর্ষে। যিনি দাবা খেলেন তাকে দাবাড়ু বলা হয়। দাবায় দু'জন খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করে।

image

ফুটবল একটি দলগত খেলা। এটি বৈশ্বিকভাবে ব্যাপক পরিচিত ও জনপ্রিয় খেলা। এটি আন্তর্জাতিক ফুটবল ফেডারেশন (ফিফা) কর্তৃক পরিচালিত ক্রীড়ার আনুষ্ঠানিক নাম।

image

ক্রিকেট হচ্ছে ব্যাট ও বলের একটি দলীয় খেলা যাতে এগারোজন খেলোয়াড়বিশিষ্ট দুইটি দল অংশ নেয়। এই খেলাটির উদ্ভব হয় ইংল্যান্ডে।

অভিযোগ
মাস্টার ট্রেইনার নিবন্ধন